ঢাকা | বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

মুখ চেপে ধরে ধর্ষণ করেছিলেন ম্যারাডোনা! 

প্রকাশনার সময়: ২৪ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১২ | আপডেট: ২৪ নভেম্বর ২০২১, ০৩:২৩
সংগৃহীত ছবি

ফুটবলের জাদুকর, কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন কিউবার ৩৭ বছর বয়সী এক নারী মাভিজ আলভারেজ রিগো।

সংবাদমাধ্যমে দীর্ঘ এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, প্রায় দুই দশক আগে ম্যারাডোনার সঙ্গে তিনি সম্পর্কে জড়ান। আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি তখন মাদকের চিকিৎসার জন্য কিউবায় ছিলেন। তখন ম্যারাডোনার বয়স ছিল ৪০, আর তার ১৬। সেখানেই ম্যারাডোনা তাকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ করেছেন মাভিস। সেসময় মাভিসের মা ছিলেন ঠিক পাশের ঘরে।

মাভিস সেই দুঃসহ অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়ে বলেন, তিনি (ম্যারাডোনা) আমার মুখ চেপে রেখে ধর্ষণ করেছিলেন, যাতে আমি চিৎকার না করতে পারি। আমি এটা নিয়ে ভাবতে চাই না। সেদিন থেকে আমি আর কিশোরী ছিলাম না। আমার নিষ্কলুষতা সেদিন কেড়ে নেয়া হয়েছিল। এটা ভীষণ কঠিন ছিল। ওই বয়সের একটা মেয়ের যে নিষ্কলুষতা থাকে, সেই জীবনযাপন আমি আর করতে পারিনি।

বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে বসবাস করছেন মাভিস। দুই সন্তানের জননী তিনি। বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, ম্যারাডোনার সঙ্গে পাঁচ বছরের সম্পর্ক চলাকালে অনেকবার শারীরিক ও মানসিক নিগ্রহের শিকার হওয়ার দাবি করেছেন মাভিস। ২০০১ সালে বুয়েন্স এইরেসে বেড়াতে গেলে তাকে কয়েক সপ্তাহ হোটেলে আটকে রাখা, একা একা বাইরে বের হতে বাধা দেওয়া এবং জোর করে কৃত্রিম স্তন প্রতিস্থাপনের অভিযোগও তুলেছেন তিনি।

ম্যরাডোনার মৃত্যুর পর এত বছর আগের ঘটনা নিয়ে অভিযোগ তোলার কারণ হিসেবে মাভিস আলভারেজ জানান, ম্যারাডোনার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ২৫ নভেম্বর তার সম্পর্কে একটি টিভি সিরিজে যে গল্পগুলো বলা হয়েছে, তার মধ্যে ভারসাম্য আনার জন্য তিনি এত বছর নীরব থাকার পর এ বিষয়ে কথা বলেন।

উল্লেখ্য, মস্তিষ্কে জমাট বাধার কারণে হওয়া অস্ত্রোপচারের পর গত বছরের ২৫ নভেম্বর মৃত্যু হয় আর্জেন্টিনার ১৯৮৬ বিশ্বকাপ জয়ের মহানায়ক ম্যারাডোনার।

নয়া শতাব্দী/এমআর

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন