ঢাকা, শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

ভাইরাল দৈনিক ইন্তেকাল প্রেস কার্ডের নেপথ্যে

প্রকাশনার সময়: ১৯ মার্চ ২০২২, ২১:৩০

দৈনিক ইন্তেকাল পত্রিকার নামের একটি প্রেস কার্ড ইতোমধ্যেই সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। কার্ডটি এক ব্যাক্তির ছবি রয়েছে। ছবির নিচে দেখা যায় তার নাম আবুল মিয়া। শনিবার (১৯ জানুয়ারি) বিকেলে না জেনে ছবিটিকে অনেকেই নিজেদের মতো ব্যাখ্যা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করছেন। তবে ঘটনাটি ঠিক উল্টো।

জানা যায়, কুয়াকাটা মাল্টিমিডিয়া নামের একটি ইউটিউব চ্যানেলে প্রচারের জন্য কনটেন্ট তৈরির একটি অংশ এ প্রেস কার্ড। শুটিং চলাকালে কেউ একজন কার্ডটির ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট করেছেন।

এ বিষয়ে কুয়াকাটা মাল্টিমিডিয়ার লেখক ও পরিচালক শুভ হোসাইন কবির গণমাধ্যমকে বলেন, বর্তমানে অনেক ভুঁইফোড় সংবাদ মাধ্যম ও সাংবাদিকের দেখা মেলে, যারা শিক্ষা ও যোগ্যতা ছাড়াই অন্যের নাম ভাঙিয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। তাদের রোষানলে পড়তে হচ্ছে সাধারণ মানুষ ও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করা মিডিয়া ও যোগ্য সাংবাদিকদের। তাই এমন একটি চরিত্র তুলে ধরে সমাজের চোখ খুলে দিতে আমাদের এ আয়োজন। সমাজের সত্যিকারের সাংবাদিকদের সম্মান ও মর্যাদা বজায় রেখে কনটেন্টটি তৈরি করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমাদের কনটেন্টে যিনি ‘দৈনিক ইন্তেকাল’ পত্রিকার পরিচয় দিচ্ছেন তিনি সমাজের অনেক মানুষকে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদাবাজি করতেন কিন্তু একটি সময় তাকে আইনের আওতায় আসতে হয়। একই সঙ্গে অপরাধ অনুযায়ী শাস্তি দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে ভাইরাল হওয়া কার্ডে প্রকাশিত ছবির ব্যক্তির ‘আবুল মিয়া’ প্রকৃত নাম সাদ্দাম মাল। বলেন, আমরা মূল ধারার সাংবাদিকদের সমাজের আয়না হিসেবে দেখি। সত্যিকারের কলমযোদ্ধাদের সম্মান গল্পে সমুন্নত রেখেছি।

সাদ্দাম আরও বলেন, এ গল্পে আমি সমাজের হলুদ সাংবাদিকতা করা একজন আবুল মিয়া, যিনি সবসময় মানুষের সঙ্গে সাংবাদিকতাকে পুঁজি করে প্রতারণা করে আসছে। একটি সময় এ চরিত্রের লোককে সবাই চিনে ফেলে এবং আইনের হাতে সোপর্দ করে।

তিনি বলেন, ‘কার্ডটা দেখে অনেকেই বিভ্রান্তিতে পড়েছেন। আমাদের এই কনটেন্ট শিগগির রিলিজ হবে। পুরো কনটেন্টটি দেখলে আশা করি সবার ভুল ভেঙে যাবে।’

নয়া শতাব্দী/জেআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ