বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩, ৮ চৈত্র ১৪৩০

মেয়ে অবিবাহিত থাকলে কি হজ করা যাবে?

প্রকাশনার সময়: ১৮ মার্চ ২০২৩, ১৯:৫৬ | আপডেট: ১৮ মার্চ ২০২৩, ১৯:৫৮

মুসলিম উম্মাহর ঐক্য-ভ্রাতৃত্বের মহাসম্মেলন হজ। ইসলামের ৫টি স্তম্ভের মধ্যে হজ চতুর্থ, যা অবশ্যই পালনীয়। হজের শাব্দিক অর্থ হচ্ছে ইচ্ছা বা সংকল্প। আর হজের পারিভাষিক সংজ্ঞা সম্পর্কে ইহয়াউল-উলুম গ্রন্থকার বলেন, ‘আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের উদ্দেশ্যে নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট কার্যাবলির মাধ্যমে পবিত্র কাবাঘর জিয়ারত করার ইচ্ছা পোষণ করাকেই হজ বলে।’

হজ আল্লাহ তাআলার একটি বিশেষ বিধান। আর্থিক ও শারীরিকভাবে সমর্থ পুরুষ ও নারীর ওপর হজ ফরজ। হজ সম্পর্কে কোরআন শরিফে আল্লাহতাআলা বলেন, আল্লাহর তরফ থেকে সেই সব মানুষের জন্য হজ ফরজ করে দেওয়া হয়েছে। যারা তা আদায়ের সামর্থ রাখে। (সুরা আলে ইমরান : ৯৭)

রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি হজ অথবা ওমরা কিংবা আল্লাহর রাস্তায় জেহাদের উদ্দেশ্যে বের হয়েছে, অতপর সে ওই পথেই মৃত্যুবরণ করেছে, আল্লাহ তাআলা তার জন্য গাজ, হাজি অথবা ওমরা পালনকারীর সওয়াব লিখে দেবেন।’ (মিশকাত শরিফ : ২৪২৪)

আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, আমি নবীজি (সা.)-কে বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর জন্য হজ করল এবং স্ত্রী সহবাস, যাবতীয় অশ্লীল কাজ ও গালমন্দ থেকে বিরত থাকল; সে ওই দিনের মতো (নিষ্পাপ) হয়ে ফিরল; যেদিন তার মা তাকে জন্ম দিয়েছিল।’ (বুখারি) রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি হজ অথবা ওমরার জন্য বায়তুল মাকদিস হতে মাসজিদুল হারাম পর্যন্ত গমনের ইহরাম বাঁধে, তার পূর্ববর্তী ও পরবর্তী সময়ে সব গোনাহ ক্ষমা করে দেয়া হবে অথবা তার জন্য জান্নাত ওয়াজিব হবে।’ (আবু দাউদ : ১৭৪১)

অবিবাহিত মেয়ে রেখে হজ করা জায়েজ। এতে কোনো সমস্যা নেই। তবে এটা নিশ্চিত করতে হবে—কোনোভাবেই যেন মেয়ের নিরাপত্তায় সমস্যা না হয়। যদি ঠিকমতো নিরাপত্তা হয়, আপনার হজ করার সামর্থ্য থাকে, থাকার জায়গা নিশ্চিন্ত হয়, তাহলে হজ করতে পারবেন।

নয়া শতাব্দী/আরআর

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ