ঢাকা, শনিবার, ২৫ জুন ২০২২, ১১ আষাঢ় ১৪২৯, ২৪ জিলকদ ১৪৪৩

তুরস্কে হাফেজদের বর্ণাঢ্য সংবর্ধনা

প্রকাশনার সময়: ২০ জুন ২০২২, ০৮:৪৬

তুরস্ক আবারও হাফেজে কোরআনদের বর্ণাঢ্য সংবর্ধনা দিয়েছে। দেশটির ট্রাবজোন প্রদেশের দারুল ইফতা এই সম্মাননার আয়োজন করে। স্থানীয় সময় শুক্রবার তুরস্কের ধর্মবিষয়ক প্রধান প্রফেসর ড. আলি এরবাশের উপস্থিতিতে অন্তত ৭২ জন হাফেজে কোরআনকে এ সংবর্ধনা দেয়া হয়।

এ সময় হাদিসের উদ্ধৃতি দিয়ে আলি এরবাশ বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে যে কোরআনে কারিম শেখে এবং শেখায় সে সর্বোত্তম। একজন হাফেজে কোরআন আল্লাহর কাছে প্রশংসিত আর কোরআনের হাফেজদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান একটি উত্তম উদযাপন।’

কোরআন ও হাদিসকে আঁকড়ে ধরার গুরুত্ব সম্পর্কে হাদিসের উদ্ধৃতি দিয়ে ড. আলি এরবাশ বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে দুটি বস্তু রেখে গেলাম; যতক্ষণ তা আঁকড়ে ধরে রাখবে ততক্ষণ পর্যন্ত পথভ্রষ্ট হবে না।’

তিনি বলেন, ইবনে সিনা, আকা শামসুদ্দিনের মতো মুসলিম মনীষীরা শুরুতে একজন হাফেজে কোরআন ছিলেন। তারা প্রথমে কোরআন হিফজ করেছেন তারপর সাধারণ পড়াশোনায় আত্মনিয়োগ করেছেন।’

পবিত্র কোরআনকে মহাবিস্ময় আখ্যায়িত করে এ ইসলামি স্কলার বলেন, ‘দুনিয়ার সবচেয়ে বড় মুজিজা (অলৌকিক বিষয়) হলো পবিত্র কোরআন। আল্লাহ কোরআন নাজিল করেছেন মানুষকে অন্ধকার থেকে আলোর দিকে বের করার জন্য। এটি আল্লাহর রাসুল (সা.)-এরও বড় মুজিজা এবং ইসলামের প্রধান উৎস।’

তুর্কি ধর্মবিষয়ক অধিদফতর ২০২০ সালে সাধারণ শিক্ষার পাশাপাশি কোরআন হেফজ ও ইসলামি শিক্ষা বিষয়ে একটি বিশেষ প্রকল্প গ্রহণ করে। সেই প্রকল্পের অধীনেই ৭২ জন শিক্ষার্থী হেফজ সম্পন্ন করল। তুর্কি নিউজ এজেন্সি জানায়, ২০২১ সালে তুরস্কে ১১ হাজার ৭৭৩ জন শিশু-কিশোর পবিত্র কোরআন হিফজ সম্পন্ন করে এবং তাদের আনুষ্ঠানিকভাবে হিফজ সনদ প্রদান করা হয়।

সূত্র: তুর্কি নিউজ এজেন্সি

নয়া শতাব্দী/জেআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ