ঢাকা, বুধবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ৫ মাঘ ১৪২৮, ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ইউরোপে সামরিক সংঘাত দেখছে রাশিয়া

প্রকাশনার সময়: ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১০:১৮

ইউরোপে ক্রমেই একটি সামরিক সংঘাতের দুঃস্বপ্ন ফিরে আসছে বলে হুঁশিয়ার করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সার্জেই লাভরভ।

সুইডেনে অনুষ্ঠিত ইউরোপীয় নিরাপত্তা সম্মেলনে উত্তর আন্টলান্টিক নিরাপত্তা জোট-ন্যাটোর পূর্বমুখী অগ্রযাত্রা ঠেকাতে ইউরোপকেন্দ্রিক একটি নিরাপত্তা চুক্তির প্রস্তাব রাখেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

এর আগে, প্রতিবেশী ইউক্রেনের সঙ্গে সংঘাতে জড়ালে রাশিয়াকে কঠোর পরিণতি ভোগ করতে হবে ঘোষণা দিয়েছিলেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।

এদিকে এমন এক সময় ইউরোপের দেশগুলো নিরাপত্তা বৈঠকে বসেছে; যার কয়েকদিন আগে থেকে ইউক্রেন তাদের সীমান্তে অন্তত ৯০ হাজার রুশ সেনা সমাবেশের কথা জানিয়ে আসছে। মস্কো অবশ্য এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, সীমান্তে কিয়েভই সেনা জমায়েত করছে।

এমন টান টান উত্তেজনার মধ্যেই বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) তিন ইউক্রেনিয়ান এজেন্টকে গ্রেফতারের খবর জানিয়েছে রাশিয়ার ফেডারেল সিকিউরিটি সার্ভিস। তাদের মধ্যে এক জনকে সন্ত্রাসী হামলার পরিকল্পনা এবং বাকি দুই জনকে গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে অভিযুক্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে বিবিসি।

অন্যদিকে, অর্গানাইজেশন ফর সিকিউরিটি অ্যান্ড কো অপারেশন ইন ইউরোপের (ওএসসিই) সম্মেলনে রুশ-মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই বৈঠকের ব্যাপারে এক মার্কিন কর্মকর্তা বিবিসিকে জানিয়েছেন, ইউক্রেন ইস্যুতে আলোচনা এগিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে উভয়পক্ষই সম্মত হয়েছে।

যৌথ সংবাদ সম্মেলন থেকে বলা হয়েছে, পারস্পারিক সংকট নিরসনের সবচেয়ে বড় অস্ত্র কূটনীতি; আর এখনই তা কাজে লাগানোর উপযুক্ত সময়।

বার্তা সংস্থা ইন্টারফ্যাক্স জানাচ্ছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মধ্যে শিগগিরই সরাসরি আলোচনার ব্যাপারে দুই পক্ষেরই ইতিবাচক মনোভাব লক্ষ্য করা গেছে।

চলতি বছরের জুনে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠিত এক সম্মেলনের সাইডলাইনে বাইডেন-পুতিন আলোচনায় ইউক্রেন সীমান্তে অতিরিক্ত রুশ সেনা মোতায়েনের বিষয়টি উঠেছিল।

এর আগের সপ্তাহে পুতিন বলেছিলেন, ইউক্রেন ন্যাটোর সদস্য নয়; তাই সেখানে ওই নিরাপত্তা জোটের কার্যক্রম সীমিত করার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের নিশ্চয়তা চাইবে রাশিয়া।

কিন্তু, বৃহস্পতিবার রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী লাভারভ জানালেন, শান্তিপূর্ণ আলোচনার পথ বন্ধ করে দিয়েছে ন্যাটো। রোমানিয়া এবং পোল্যান্ড সীমান্তে সামরিক স্থাপনা গড়তে গড়তে ন্যাটো এখন রাশিয়ার খুব কাছাকাছি চলে এসেছে। সেখানে অ্যান্টি মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম বসানো হয়েছে, যেন অঞ্চলটিকে আক্রমণ কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অচিরেই মার্কিন মধ্যমপাল্লার মিসাইলে ইউরোপ ছেয়ে যাবে। আর সমগ্র অঞ্চলে সামরিক সংঘাতের সেই দুঃস্বপ্ন ফিরে আসবে।

নয়া শতাব্দী/এসএম

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়