ঢাকা, সোমবার, ৩ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯, ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ভ্রমণের আড়ালে অর্থ পাচার

প্রকাশনার সময়: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:২০

অর্থপাচার নিয়ে সরব সরকার। তারপরও অর্থপাচার থামানো যাচ্ছে না কোনোভাবেই। দেশের বাজারে ডলার সংকট দেশের অর্থনীতিকে বেশ চাপে রেখেছে। নানা উদ্যোগ নিয়েও কাটছে না সংকট। শিক্ষা, চিকিৎসা কিংবা বেড়ানোসহ নানা কারণে ভ্রমণের নামে বিদেশে চলে যাচ্ছে বিপুল পরিমাণ বিদেশি মুদ্রা। এই ব্যয়ে নেই যথাযথ নজরদারি। ফলে এসব ক্ষেত্রে বেশির ভাগ মুদ্রাই যাচ্ছে অবৈধভাবে।

ভ্রমণ, শিক্ষা ও চিকিৎসার জন্য বেশির ভাগ বাংলাদেশি বিদেশে যাচ্ছেন। যা ভারতে যাওয়ার সংখ্যাই বেশি। ভ্রমণ ভিসার জন্য ভারতীয় হাইকমিশন সর্বদা ভিড় থাকে। প্রতি বছর লাখ লাখ বাংলাদেশি ঘুরতে যাচ্ছেন দেশটিতে, যাদের বড় অংশই যায় চিকিৎসা ও শিক্ষার জন্য।

থাইল্যান্ড-সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা নিতে যাচ্ছেন অনেকেই। প্রতি বছর কত রোগী এসব দেশে চিকিৎসার জন্য যান তার সঠিক পরিসংখ্যান নেই। ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির তথ্য মতে, প্রতি বছর বিদেশ থেকে ভারতে চিকিৎসা নিতে যাওয়া রোগীর ২২ শতাংশই বাংলাদেশি।

ভারতের ব্যুরো অব ইমিগ্রেশন দফতর বলছে, দেশটিতে সবচেয়ে বেশিসংখ্যক পর্যটক যায় বাংলাদেশ থেকে। ২০১৮ সালে প্রায় ২২ লাখ বাংলাদেশি পর্যটক ভারতে গেছেন। ২০২০ সালের মার্চে করোনা মহামারিতে দেশটি ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিলে এ হার নেমে আসে শূন্যের কোঠায়। প্রায় দুই বছর পর এ নিষেধাজ্ঞা শিথিল করলে দেশটিতে ফের বাড়তে থাকে বাংলাদেশি পর্যটকের সংখ্যা।

ভারতের ভিসাপ্রত্যাশীদের চাপ সামলাতে জনবল ও অফিসের সময় বাড়াতে হয় ঢাকায় ভারতীয় ভিসা আবেদনকেন্দ্রের। একই সঙ্গে ভিড় নিয়ন্ত্রণ ও শৃঙ্খলার জন্য জনবল বাড়ানোসহ নেয়া হয় নানা ব্যবস্থা। গত রোববার বন্ধ থাকার কথা থাকলেও কার্যক্রম চালু রেখেছে ভারতীয় ভিসা আবেদনকেন্দ্র। ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে বাংলাদেশি হাইকমিশন অফিসের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতে আসা পর্যটকদের প্রতি পাঁচজনের একজনই বাংলাদেশি।

প্রশ্ন উঠেছে এসব পর্যটকের ব্যয় নিয়েও। সম্প্রতি দিল্লিতে বাংলাদেশি হাইকমিশনার মোহাম্মদ ইমরান হোসেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো এক চিঠিতে এ প্রশ্ন তোলেন।

পর্যটন কিংবা চিকিৎসার জন্য যারা ভারতে যাচ্ছেন তাদের তো বটেই, যেসব শিক্ষার্থী ভারতে লেখাপড়া করতে যান তাদের অভিভাবকদের করযোগ্য আয়ের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে বলা হয় ওই চিঠিতে। বলা হয়, এসব বিষয়ে সরকার ব্যবস্থা নিলে দেশ থেকে টাকা পাচার রোধ করা যাবে। সাশ্রয় হবে বিপুল বৈদেশিক মুদ্রা।

জানা যায়, ওই চিঠির একটি অনুলিপি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সম্প্রতি জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) পাঠানো হয়েছে।

বর্তমানে দেশের বৈদেশিক মুদ্র্রার আনুষ্ঠানিক কিংবা অনানুষ্ঠানিক বাজার অস্থিরতা চলছে। প্রতিনিয়ত কমছে বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ। যার প্রভাব পড়েছে বিনিময় হারে। সম্প্রতি টাকার বিপরীতে ডলারের দাম রেকর্ড ছাড়িয়েছে। এমন বাস্তবতায় বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ে সরকারি কর্মকর্তাদের অপ্রয়োজনীয় বিদেশ ভ্রমণে নিরুৎসাহিত করাসহ নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। কিন্তু খুব একটা লাগাম টানা যায়নি বেসরকারি পর্যায়ে বিদেশ ভ্রমণে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে যেকোনো দেশে ভ্রমণের জন্য বৈধভাবে বছরে সর্বোচ্চ ১২ হাজার ডলার নেয়া যায়। চিকিৎসার জন্য নেয়া যায় ১০ হাজার ডলার। এর বেশি নিতে হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতি লাগে। আর উচ্চশিক্ষার জন্য প্রয়োজন অনুযায়ী ডলার পাঠাতে পারেন তাদের অভিভাবকরা। আইনে বিদেশ ভ্রমণে ডলার নেয়ার সীমা থাকলেও বাস্তবে এর চেয়ে বহুগুণ চলে যাচ্ছে অবৈধ পথে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘চিকিৎসা, শিক্ষা কিংবা ভ্রমণের জন্য যারা বৈধ পথে বিদেশ যান তারা কত ডলার নিতে পারবেন তার সীমা দেয়া আছে। এর চেয়ে বেশি নেয়ার সুযোগ নেই। কেউ যদি চুরি করে নেয় সেটা তো আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে।’ তিনি জানান, সীমার বেশি নিতে হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতি লাগে। এক্ষেত্রে যৌক্তিকতা যাচাই করেই অনুমতি দেয়া হয়।

গবেষণা সংস্থা পিআরআইয়ের নির্বাহী পরিচালক অর্থনীতিবিদ ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘উন্নত চিকিৎসার জন্য যে কেউ বিদেশ যেতেই পারে। সরকার তা বন্ধ করতে পারে না। আমার মনে হয়, এখানে যে ধরনের তদারিক দরকার তা হচ্ছে না। বাংলাদেশ ব্যাংকসহ অন্য সরকারি সংস্থার এদিকে নজর দেয়া উচিত।’

হাইকমিশনার তার চিঠিতে বলেন, ‘বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সাম্প্রতিককালে বিভিন্ন ক্ষেত্রে যোগাযোগের গভীরতা বৃদ্ধি পাওয়ায় নানা কারণে জনগণের যাতায়াত বেড়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে বিদ্যমান আর্থিক নীতিমালার সুষ্ঠু প্রয়োগ নিশ্চিত করলে বড় অঙ্কের বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হতে পারে।’

চিকিৎসা বিষয়ে চিঠিতে বলা হয়, প্রতি বছর বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি বিভিন্ন জটিল রোগের চিকিৎসা নিতে আসেন ভারতে। রোগীর সঙ্গে অভিভাবকও থাকেন, যা খরচের পরিমাণ আরও বাড়িয়ে তোলে। অথচ জটিল ও মুমূর্ষু রোগী ছাড়া অনেক ক্ষেত্রেই এ ধরনের চিকিৎসা এখন বাংলাদেশেই সম্ভব।

তাই বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশিদের বিদেশি চিকিৎসা নেয়ার প্রয়োজন আছে কি না, সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা যেতে পারে। বিশেষ বিবেচনা করে চিকিৎসার অনুমতি দিলে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রার সাশ্রয় হতে পারে।

ভারতের পর্যটন মন্ত্রণালয়ের তথ্য মতে, ভারতের মেডিকেল ট্যুরিজম খাতে আয় প্রায় বছরে ১০ বিলিয়ন ডলার। এই আয়ের উল্লেখযোগ্য পরিমাণই আসে বাংলাদেশিদের কাছ থেকে।

শিক্ষা ভ্রমণ প্রসঙ্গে চিঠিতে বলা হয়, বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে আসা উল্লেখযোগ্যসংখ্যক ছাত্রছাত্রী ভারতের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজ খরচে স্নাতক বা স্নাতকোত্তর পর্যায়ে পড়াশোনা করছেন। প্রতি বছর এ সংখ্যা বেড়েই চলেছে। স্নাতক পর্যায়ের একজন শিক্ষার্থীকে ভারতে প্রতি বছর আনুমানিক তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকা খরচ করতে হয়। এক্ষেত্রে বিদেশে উচ্চশিক্ষা গ্রহণকে নিরুৎসাহিত না করে, ছাত্রছাত্রীরা যাতে সঠিক ও বৈধ চ্যানেলে অর্থ স্থানান্তর করে তা নিশ্চিত করা যেতে পারে।

পর্যটন ভিসার বিষয়ে চিঠিতে বলা হয়, ধর্মীয় উৎসব, বিয়ে বা অন্য কোনো সামাজিক উৎসব উপলক্ষে কেনাকাটার জন্য বছরজুড়েই বিপুলসংখ্যক বাংলাদেশি ভারতে ভ্রমণ করে থাকেন। এ ছাড়া বাংলাদেশের মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় পর্যটকদের সংখ্যা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। এক্ষেত্রেও বিদেশ ভ্রমণের জন্য বাংলাদেশি পর্যটকরা যাতে সঠিক ও বৈধ পথে অর্থ নিয়ে আসে, তা নিশ্চিত করা যেতে পারে।

ভ্রমণকারীদের কর দেয়ার সামর্থ্য রয়েছে বলে মনে করেন হাইকমিশনার। যারা চিকিৎসা নিতে বিদেশে আসেন কিংবা যেসব অভিভাবক তাদের সন্তানদের উচ্চশিক্ষায় বিদেশ পাঠান তাদেরও সেই সামর্থ্য আছে। তারা ঠিকমতো সেটি পরিপালন করছেন কি না, তা খতিয়ে দেখার সুপারিশও করা হয় ইকবাল হোসেনের চিঠিতে।

জানা যায়, চলতি অর্থবছরের বাজেটে ৩৮ সেবার ক্ষেত্রে আয়কর রিটার্ন দাখিলের সঙ্গে প্রমাণাদি দেখানো বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। হাইকমিশনার মনে করেন, ভ্রমণকারীদের বাধ্যতামূলক রিটার্ন দাখিলের প্রমাণ প্রদর্শনের বিষয়টি নিশ্চিত করা গেলে সরকারের রাজস্ব বাড়বে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এনবিআরের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘হাইকমিশনারের চিঠিটি আমরা পেয়েছি। যেসব প্রস্তাব তিনি দিয়েছেন তা যৌক্তিক। আমরা এ বিষয়ে কাজ করছি। আগামী বাজেটে তার প্রতিফলন থাকতে পারে।’

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাবেক ঊর্ধ্বতন পরিচালক ও অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত বলেন, ‘আমাদের দেশে সেবা খাতে সীমাবদ্ধতা আছে। যে কারণে অনেকেই চিকিৎসা, শিক্ষা নিতে বিদেশ যাচ্ছে। এটা ঠিক, চিকিৎসায় বিপুল পরিমাণ বিদেশি মুদ্রা ব্যয় হচ্ছে। এখানে শক্তভাবে তদারিক করা দরকার। পাশাপাশি দেশে মানসম্মত চিকিৎসা নিশ্চিত করতে হবে সরকারকে। তাহলে বিদেশ যাওয়া কমবে রোগীদের।’

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ