ঢাকা, শুক্রবার, ২১ জানুয়ারি ২০২২, ৭ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

বিয়ে কেন গোপনে

প্রকাশনার সময়: ১২ জানুয়ারি ২০২২, ১০:৫২

তারকাদের প্রেম-বিয়ে নিয়ে মানুষের কৌতূহল অনেক পুরোনো। হলিউড কিংবা বলিউডের তারকারা এসব বিষয়ে খুব বেশি লুকোচুরির আশ্রয় নেন না। কিন্তু দেশের বিনোদন তারকারা এ ধরনের খবর চেপে রাখতেই পছন্দ করেন। যদিও গোপন বিয়ের খবর শেষে আর গোপন থাকে না। তবুও কেউ কেউ এই লুকোচুরি খেলার আশ্রয় নেন। অনেকে পারিবারিকভাবে বিয়ে করেও সেই খবর গোপন রেখে প্রশান্তির ঢেঁকুর তোলেন।

আর তখনই এ নিয়ে সমালোচনার মুখে পড়েন তারকারা। বাংলাদেশের জন্মলগ্ন থেকেই শোবিজে এমনটি হয়ে আসছে। যা এখনো চলমান। বর্তমান সময়ের শীর্ষ নায়ক শাকিব খানও গোপন রেখেছিলেন বিয়ের খবর। তার স্ত্রী চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস যখন সন্তানসম্ভবা হন তখন থেকেই একটু একটু করে শাকিব খানের গোপন বিয়ের খবরটি প্রকাশ্যে আসতে থাকে। শেষ পর্যন্ত মিডিয়ায় এসে সেই গোপন কথা ফাঁস করে দেন অপু বিশ্বাস।

গত সোমবার চিত্রনায়িকা পরীমনি ফেসবুকে জানান যে তিনি অন্তঃসত্ত্বা। আর অনাগত সন্তানের পিতা অভিনেতা শরিফুল রাজ। দু’জনে বিয়ে করেছেন গত বছরের ১৭ অক্টোবর। তাহলে এতদিন কেন বিয়ের বিষয়টি গোপন রেখেছিলেন তারা, প্রাইভেসি? যেখানে দুনিয়ার মানুষ বিয়ে করেন উৎসব আয়োজনে, সেখানে তারকারা কেন গোপনে বিয়ে করাতেই আশ্রয় নেন এই প্রশ্ন ফের দানা বাঁধে শোবিজ অঙ্গনে। কেউ বলছেন, হয়তো পরীমনির এটা চতুর্থ বিয়ে বলেই লুকোচুরি করেছেন! কেউবা বলছেন, আদালতে যেহেতু পরীমনির মামলা চলমান সে কারণেই এই গোপনীয়তার আশ্রয়! অনেকে বলছেন, বিয়ের খবর জানিয়ে নতুন করে আর সমালোচনার মুখে পড়তে চান না পরী, সে জন্য এবারের বিয়েও গোপন রাখেন তিনি।

বিয়ের খবর লুকিয়ে রাখার পেছনে তারকাদের কোন ধরনের মানসিকতা কাজ করে, এমন বিষয়ে কথা হয় মনোচিকিৎসক ড. হেলাল উদ্দিন আহমেদের সঙ্গে। তার মতে, বিয়ের কথা গোপন করার ক্ষেত্রে তারকা এবং ভক্ত দুই পক্ষের মানসিক অবস্থাই অনুঘটক হিসেবে কাজ করে। প্রথমত, দর্শক-ভক্তরা প্রিয় তারকাকে একদম নিজের আপনজন বলে মনে করে আনন্দ পান। বিয়ের মাধ্যমে যেহেতু প্রিয় তারকা নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেন, সেক্ষেত্রে ভক্তের মনে হতে পারে যে তিনি তার প্রিয় তারকার প্রতি মালিকানা হারিয়েছেন। অন্যদিকে, তারকারাও মনে করেন বিয়ের খবর প্রকাশের মাধ্যমে তিনি ভক্তদের কাছে তার আগের যে আবেদন সেটি হারিয়ে ফেলবেন।

দেশের শোবিজ সংস্কৃতিতে নায়কদের চেয়ে নায়িকাদের ক্ষেত্রেই এই আবেদন কমে যাওয়ার বিষয়টি লক্ষ্য করা যায় বেশি। ড. হেলাল বলেন, ‘এই অবস্থার পরিবর্তন আনতে হবে তারকাদেরকেই। তারা যদি ভক্তদের ইচ্ছার স্রোতে গা ভাসিয়ে না দিয়ে নিজেরাই নিজেদের কাজে সর্বোচ্চ চেষ্টা প্রয়োগ করেন তবেই ভক্তদের মানসিকতার পরিবর্তন হবে।’

বলিউডের দিকে তাকালে দেখা যায়, সুপারস্টার শাহরুখ খান আর আমির খানের মতো নায়করা ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই প্রকাশ্যে বিবাহিত জীবন যাপন করার পরও দীর্ঘদিন ধরে খ্যাতির চূড়ায়। এছাড়া মাধুরী দীক্ষিত কিংবা কাজল দেবগণের মতো জনপ্রিয় নায়িকারাও এখনো আগের মতোই পারফরম্যান্স করে যাচ্ছেন। বরং অনেক ক্ষেত্রে আগের চেয়েও চৌকস হয়েছেন। বৈবাহিক অবস্থা তাদের জনপ্রিয়তায় কোনো বাধা হতে পারেনি।

তবে কেন এ দেশের তারকাদের মধ্যে বিয়ে নিয়ে এত লুকোচুরি? চিত্রনায়ক আরিফিন শুভ হেসে জানালেন, তিনি যেহেতু তার বিয়ের খবরটি গোপন করেননি তাই আসলেই জানেন না ঠিক কী কারণে তারকারা এই কাজটি করে থাকেন। এই চিত্রনায়কের মতে, বিবাহিত হওয়া কিংবা সন্তানের পিতা-মাতা হওয়ার সঙ্গে ক্যারিয়ারের কোনো বিরোধ নেই। পৃথিবীর বিখ্যাত সব তারকারাই ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত ছিলেন। এমনকি আমাদের দেশেও জনপ্রিয় অনেক তারকাই বিবাহিত এবং সংসারী ছিলেন।

নয়া শতাব্দী/এসএম

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়