ঢাকা, শুক্রবার, ২১ জানুয়ারি ২০২২, ৭ মাঘ ১৪২৮, ১৭ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

প্রভোস্টের পদত্যাগের দাবিতে লাগাতার আন্দোলন

প্রকাশনার সময়: ১৪ জানুয়ারি ২০২২, ১৭:৩৬

সিরাজুন্নেসা ছাত্রী হলের প্রভোস্ট ও সিন্ডিকেট সদস্য জাফরিন আহমদ লিজা'র পদত্যাগসহ তিন দফা দাবি আদায়ে ফের উপাচার্য কার্যালয়ে সামনে অবস্থান নিয়েছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীরা।

শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) বেলা ১২ টা থেকে উপাচার্য কার্যালয়ের সামনে তারা অবস্থান নেন। এসময় লিখিত ভাবে তিন দফা দাবি নিয়ে ছাত্রীদের ১০ জন প্রতিনিধি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদের কার্যালয়ে যান।

তাদের দাবিগুলোর হলো- প্রভোস্ট কমিটির পদত্যাগ, হলের যাবতীয় অব্যবস্থাপনা নির্মূল, করে হলের সুন্দর ও স্বাভাবিক পরিবেশ নিশ্চিত করা, ছাত্রীবান্ধব ও দায়িত্বশীল প্রভোস্ট কমিটি নিয়োগ দেওয়া।

এর আগে বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) রাত ৮ টায় ছাত্রীরা এ আন্দোলন শুরু করেন। প্রথমে সিরাজুন্নেছা ছাত্রী হলের সামনে থেকে বিক্ষোভ শুরু করে পরে রাত ১১ টার দিকে শ্লোগান দিয়ে এসে উপাচার্যের বাসভবনের বাহিরে অবস্থান নেন।

পরে রাত ২ টার দিকে উপার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বাসভবন থেকে বের হয়ে ছাত্রীদের সাথে কথা বলেন। তিনি ছাত্রীদের আশ্বস্ত করে দিনেরবেলা দাবিগুলো লিখিত আকারে নিয়ে আসতে বলেন। এর প্রেক্ষিতে ছাত্রীরা অবস্থান থেকে সরে যান।

এদিকে রাতে আন্দোলনের সময় ছাত্রীরা অভিযোগ করে বলেন, 'হল প্রভোস্ট জাফরিন আহমদ লিজা তাদের সাথে খারাপ আচরণ করেছেন। দাবিদাওয়া নিয়ে কথা বলতে চাইলে তিনি শিক্ষার্থীদের বলেন, ভালো লাগলে হলে থাকো নাহয় চলে যাও বলে জানান।'

ছাত্রীরা আরও বলেন, 'দ্বিতীয় ছাত্রী হলের কর্মকর্তা কর্মচারী থেকে শুরু করে হল প্রভোস্ট ছাত্রীদের সাথে খারাপ আচরণ করেন। এসব বিষয় নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত ৮ টার দিকে ছাত্রীরা একত্রিত হয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনার পর প্রভোস্টের সাথে কথা বলতে চাইলে হল প্রভোস্ট নিজেকে করোনা আক্রান্ত জানান। তখন ছাত্রীরা সহকারী প্রভোস্টকে পাঠানোর কথা বললে প্রভোস্ট জাফরিন আহমদ লিজা ফের খারাপ আচরণ করেন।'

শিক্ষার্থীদের অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে ছাত্রী হলের প্রভোস্ট জাফরিন আহমদ লিজা বলেন, 'রাত ১০ টার দিকে শিক্ষার্থীরা আমাকে ফোন করেছিলো। আমি তাদের জানিয়েছি আমি অসুস্থ। তাদের সাথে পরে আলোচনা হবে বলে আমি জানাই। এমনকি এটি নিয়ে আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপে একটি পোস্টও দেওয়া হয়। কিন্তু তারা হঠাৎ করে কেন এমন করছে তা আমি জানি না। তাদের সাথে কিরকম খারাপ আচরণ হয়েছে সেটিও আমি জানি না।'

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদ বলেন, শিক্ষার্থীদের ১০ জন প্রতিনিধি আমার সাথে কথা বলেছে। তাদের ন্যায্য দাবিগুলো মেনে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখন যারা আন্দোলন করছে আমি তাদের চিনি না।

তবে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বেলা ৪ টায় জানিয়েছেন, হল প্রভোস্টের পদত্যাগসহ সকল দাবি মেনে না নিলে তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন।

নয়া শতাব্দী/এস

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়