ঢাকা | শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

বাঁচতে চায় বেরোবির মেধাবী নাসিম

প্রকাশনার সময়: ২০ অক্টোবর ২০২১, ১৪:৩৪ | আপডেট: ২০ অক্টোবর ২০২১, ১৪:৪৩

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সমাজবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী নাসিম হুদা। সদা হাস্যজ্জ্বল নাসিম বেরোবি ক্যাম্পাসের অন্যতম পরিচিত মুখ। যেমন মিশুক, তেমনি বিনয়ী। প্রতিটা মুহুর্তে যার মুখে লেগে থাকে এক চিলতে হাসি সেই নাসিম আজ ব্যাথার বিষাদে ভারাক্রান্ত। দীর্ঘ সময় ধরে ভূগছেন মেরুদণ্ডের হাড়ের টিউমারে। এর আগে আরও দুইবার অপারেশনের মাধ্যমে টিউমার অপসারণ করেও পুরোপুরি সুস্থ হতে পারেনি নাসিম। এবার চিকিৎসার জন্য তাকে বাইরের দেশে যাওয়ার পরামর্শ দেয় তার চিকিৎসক।

মাত্র ৭-৮ লাখ টাকা হলেই আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেন নাসিম, এর জন্য সমাজের বিত্তশালীদের সহায়তা চান তিনি।

নাসিম হুদা ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জের জাহিরুল ইসলামের ছেলে। নিম্ন-মধ্যবিত্ত পরিবারে বেড়ে ওঠা নাসিম পরিবারের দ্বিতীয় সন্তান। নাসিমের বাবা একসময় দলিল লেখার কাজে নিয়োজিত থাকলেও এখন বয়সের ভারে অসুস্থ হয়ে ছেড়েছেন সে পেশা। তার বড় ভাই নাজমুল হুদা বাবার পেশায় নিযুক্ত হয়ে কোন রকমে টানছেন সংসারের ঘানি ।

নাসিম হুদা নয়া শতাব্দীকে জানান, ২০১৫ সাল থেকে কোমড়ের ব্যাথায় ভূগলেও সাধারণ ওষুধ খেয়েই কাটিয়ে দিতেন। ২০১৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে এমআরআই করলে তার মেরুদণ্ডের হাড়ে টিউমার ধরা পরে। এরপর অপারেশনের মাধ্যমে টিউমার অপসারণ করেন। কিন্তু পুরোপুরি সুস্থ হতে পারেনি। কিছুদিন পরে ব্যাথায় কাতর হয়ে এমআরআই করেন। আবার দেখা যায় টিউমার। ২০১৮ সালে আবার অপারেশন সিদ্ধান্ত নেয় চিকিৎসক। ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে হয় অপারেশন।

এরপর বছর দুয়েক সুস্থ থাকলেও আবার ব্যাথায় ভূগতে থাকেন নাসিম। নতুন করে এমআরআই করলে দেখা যায় আগের দুইবারের চেয়ে বেশি বড় হয়েছে টিউমার। এবার বাইরের দেশে গিয়ে অপারেশন এর পরামর্শ দেয় চিকিৎসক।

কিন্তু তার পরিবারের পক্ষে নতুন করে অপারেশন করা প্রায় দুঃসাধ্য। এর আগের দুইবারে মোটা অঙ্কের অর্থ ব্যয় করে ঋণগ্রস্ত হয়ে সেই ঋণের বোঝা টানতে এখন হিমশিম খাচ্ছেন তার পরিবার। বিক্রি করার মতো জমি-জমাও নেই। যতটুকু আছে, তা আবার বন্ধক অবস্থায়।

এমন পরিস্থিতিতে সমাজের বিত্তশালীদের কাছ থেকে সহায়তা চায় নাসিমের বন্ধু-বান্ধব ও পরিবার। আবারও প্রিয় ক্যাম্পাসের নির্মল বাতাসে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে ক্লাস করতে চান তিনি। বড় হয়ে সমাজের সেবা করার প্রত্যয় তার।

এ বিষয়ে নাসিমের বন্ধু সাইদুর রহমান নয়া শতাব্দীকে বলেন, ‘আমার মেধাবী বন্ধুর জন্য আপনারা মানবতার হাত বাড়িয়ে দিন, যেন আমরা আবারো একসঙ্গে চলতে পারি।’

নাসিম হুদা নয়া শতাব্দীকে বলেন, ব্যাংকে লোন নেওয়া আছে তাই আর লোন নিতেও পারছি না। বর্তমানে ৭-৮ লাখ টাকা আমার পরিবারের পক্ষে জোগাড় করাও সম্ভব না। আমার পরিবার অনেক কষ্ট করেও টাকা ম্যানেজ করতে পারছে না।

জরুরিভাবে মেরুদণ্ডের অপারেশন করা না হলে আমার বড় ক্ষতি হয়ে যাবে। আমি আবার স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে চাই। পড়াশোনা করে দেশ ও জাতির সেবা করতে চাই।

নাসিমকে সাহায্যের ঠিকানা

এক্সিম ব্যাংক,রংপুর শাখা

একাউন্ট নাম্বারঃ 03212100338589 বিকাশ/রকেট/নগদঃ 01722-459298

নয়া শতাব্দী/জেআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন