ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০২৩, ১৪ চৈত্র ১৪২৯, ৫ রমজান ১৪৪৪

চবিতে সাংবাদিক হেনস্তার ঘটনায় মানববন্ধন

প্রকাশনার সময়: ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৫:১৭
মানববন্ধনে প্লাকার্ড হাতে এক শিক্ষার্থী। -নয়া শতাব্দী

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে নারী সংবাদকর্মীসহ বেশ কয়েকজন সংবাদকর্মীক হেনস্তা করার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। তাদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (চবিসাস)।

রোববার (১২ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে মানববন্ধন করা হয়। এসময় শিক্ষার্থীদের হাতে প্রতিবাদমূলক প্লাকার্ড দেখা যায়। মানববন্ধনে ৩দিনের মধ্যে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানায় তারা।

পাশাপাশি ভুক্তভোগী সংবাদকর্মী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সদস্য ও দৈনিক সমকাল পত্রিকার প্রতিনিধি মারজান আক্তারের সহপাঠীরা অপরাধীদের বিরুদ্ধে কার্যকরি পদক্ষেপ না নেওয়া অবধি ক্লাস বর্জন করার ঘোষনা করে।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক রওশন আক্তার, ড. শহীদুল হক, ফারজানা করিম, সুবর্ণা মজুমদার, খন্দকার আলী আর রাজী, রেজাউল করিম, রাজীব নন্দী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মাহবুব এ রহমান। এছাড়াও এতে উপস্থিত ছিলেন যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সদস্যরা।

যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক রেজাউল করিম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবাদকর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্যাসমূহ তুলে ধরেন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী হিসেবে কাজ করেন। ক্যাম্পাসে এ ধরনের পরিবেশ তৈরি হওয়া দরকার যেখানে সাংবাদিকরা স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারবেন। পেশাগত দায়িত্বপালন করতে গিয়ে এভাবে হেনস্তার শিকার হওয়াটা আমি মনে করি পুরো বাংলাদেশ এ বিষয়ে দায়বদ্ধ। তাই প্রশাসনের কাছে আমি দাবি জানাচ্ছি, যারা এ ধরনের অপরাধমূলক কাজে জড়িত প্রত্যেককে আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। যাতে সাংবাদিকতায় কেউ বাধা হয়ে না দাড়াতে পারে এ ব্যাপারে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

চবি সাংবাদিক সমিতির সভাপতি মাহবুব এ রহমান বলেন, ক্যাম্পাসে প্রায় ২৮ হাজার শিক্ষার্থীর কণ্ঠস্বর হিসেবে কাজ করেন গণমাধ্যম কর্মীরা। শিক্ষার্থীদের সুখ-দুঃখ ও হাসি-কান্নার সঙ্গী সাংবাদিকরা। বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্ভাবনার গল্পের পাশাপাশি সব অনিয়ম ও দুর্নীতির খবরও উঠে আসে সাংবাদিকদের কলমে। পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের বাধা প্রদান করা মানে ২৮ হাজার শিক্ষার্থীর টুটি চেপে ধরা। আমরা আজকের এই আন্দোলনে সংহতি জানাচ্ছি এবং দ্রুততম সময়ের মধ্যে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

মানববন্ধনে অশংগ্রহণ করা শিক্ষার্থীরা আগামী ৩ দিনের মধ্যে দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে বলেন, ক্যাম্পাসে সাংবাদিক হেনস্তা নতুন কিছু না। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে উল্লেখযোগ্য কোনো শাস্তি দেওয়া হচ্ছে না বলেই এরকম কাজ দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাই আমাদের দাবি দোষীদের দ্রুত শাস্তি নিশ্চিত করা যাতে এ ধরনের কর্মকাণ্ড পুনরাবৃত্তি না হয়।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) চবির চারুকলা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে নারী সাংবাদিকসহ বেশ কয়েকজন সাংবাদিককে হেনস্তা করার অভিযোগ উঠে চবি শাখা ছাত্রলীগের বগি ভিত্তিক উপগ্রুপ ভি এক্স ও বাংলার মুখের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।

নয়াশতাব্দী/এমএস

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ