ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২, ১ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ মহররম ১৪৪৪

আশুলিয়ায় শিক্ষক হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল শিক্ষাঙ্গন

প্রকাশনার সময়: ২৮ জুন ২০২২, ১৫:০৩

বখাটে শিক্ষার্থীর বেধরক মারধরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারের হত্যাকারী জিতুকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারসহ বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছেন শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা। ফলে শিক্ষক হত্যার প্রতিবাদে উত্তাল হয়ে উঠেছে সাভার ও আশুলিয়ার শিক্ষাঙ্গন।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) বেলা ১১টার দিকে হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও সাড়ে ১১টার দিকে সাভার উপজেলা পরিষদ চত্তরে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের ব্যান্যারে মানববন্ধন করেছেন বিভিন্ন স্কুল এবং কলেজের শিক্ষকগণ।

এসময় ছাত্র ছাত্রী ও শিক্ষকরা ছয় দফা দাবি তুলে ধরেন।

দাবি গুলো হলো- অনতিবিলম্বে ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হত্যাকারী জিতুকে গ্রেপ্তার করতে হবে, জিতুর সাথে থাকা অজ্ঞাত নামা আসামিদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনতে হবে, জিতুর বাবা জিতুকে প্রভাব খাটিয়ে ছাড়িয়ে নিয়ে গেছে। সেই জিতুর বাবা ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের আইনের আওতায় আনতে হবে, নিহতের পরিবারকে সর্বোচ্চ আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিতে হবে, কলেজের সাধারণ শিক্ষার্থী ও স্থানীয় শিক্ষার্থীদের ভেদাভেদ নির্মুলে সাধারণ সর্বজনীন আইন প্রনয়ন করতে হবে, পুরো এলাকা থেকে কিশোর গ্যাং মুছে দেওয়ার জন্য রাজনৈতিক সকল ব্যক্তিকে বিক্ষোভ মিছিলকে বেগবান করতে হবে।

এসময় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা বলেন, আমরা সারাদিন এই কর্মসূচি পালন করবো। স্থানীয় অন্যান্য স্কুল এবং কলেজের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের কাছে গিয়ে তাদের আমাদের সাথে সামিল করবো। যতক্ষণ পর্যন্ত ন্যায় বিচার এবং দাবি পূরণ না হবে ততক্ষণ আমরা আমাদের কর্মসূচি পালন করবো।

নিহত শিক্ষক উৎপল সরকার সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়ায় থানার এঙ্গেলদানি গ্রামের মৃত অজিত সরকারের ছেলে। তিনি প্রায় ১০ বছর ধরে আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকার হাজী ইউনুস আলী স্কুল এন্ড কলেজের কলেজ শাখার রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক এবং শৃংখলা কমিটির সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

এরআগে গত শনিবার (২৫ জুন) দুপুরে আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকায় হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের মাঠে শিক্ষক উৎপলকে স্ট্যাম্প দিয়ে আঘাত করেন শিক্ষার্থী জিতু। এসময় শিক্ষকের ওপর হামলার পর ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা অভিযুক্ত ছাত্র আশরাফুল ইসলাম জিতুকে আটক করলেও প্রভাব খাটিয়ে ছাড়িয়ে নেয় ওই অভিযুক্তের প্রভাবশালী পরিবার।

পরে আহত শিক্ষককে উদ্ধার করে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সোমবার (২৭ জুন) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এ ঘটনায় গত রবিবার (২৬ জুন) আশুলিয়া থানায় নিহত শিক্ষকের ভাই বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। ঘটনার পর থেকে জিতু ও তার পরিবার পলাতক রয়েছে।

অভিযুক্ত ছাত্র বখাটে আশরাফুল ইসলাম জিতু চিত্রশালাই এলাকার উজ্জ্বল হাজীর ছেলে এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির মালিক হাজী হযরত আলীর ভাগিনার ছেলে।

নয়া শতাব্দী/জিএস

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ