ঢাকা | বৃহস্পতিবার ৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৫ জিলহজ ১৪৪২

'মাংস বেচছি, এহন চাল-শেমাই আর কিছু সদাই নিমু'

সিলেট ব্যুরো

প্রকাশনার সময়: ২২ জুলাই ২০২১, ০২:৩৭ |

'৩ কেজি হইবো মাংস বেচছি। এহন চাল, সেমাই আর কিছু সদাই নিমু। এক কেজি এহনো আছে। এগুলো রান্না কইরা বৌ-পোলাপাইন লইয়া খাইমু।' কথাগুলো রিকশা চালক আলকাস উদ্দিনের।

ঈদের দিন বিকাল প্রায় সাড়ে ৩ টায় সিলেট নগরীর ক্বিণ ব্রিজের দক্ষিণ সুরমার পাশের অংশে সারা দিনে সংগ্রহ করা মাংস বিক্রি করে ফেরার পথে নয়া শতাব্দীকে কথাগুলো বলেন তিনি।

তিনি পেশায় ভ্যান চালক। বাড়ি ময়মনসিংহ। থাকেন সুবিদবাজার এলাকায়। কিন্তু গেলো কিছুদিন থেকে অসুস্থ থাকায় ঘরে ঈদের দিনের খাবারটুকুও ছিলো না। সবার ঘরে ঘরে যখন পশু কুরবানি আর পোলাও মাংসের বন্দবস্ত, তাঁর ঘরে তখন সকালের খাবার ছিলো সামান্য ভাত আর আলু।

চল্লিশ ঊর্ধ্ব আলকাস উদ্দিন বলেন, 'অসুস্থ থাকায় কয়দিন ভ্যান নিয়া বাইর হইতে পারিনি। তাই অভাব। নইলে কোন সমস্যা হয় না।'

পশুর মাংস কেনা-বিক্রির এ দৃশ্য কেবল এক জায়গায় নয়। সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন্ট, আম্বরখানা, পাঠানটুলা পয়েন্ট, রেলগ্যাটসহ নগরীর মোড়ে মোড়ে ছিলো এমন দৃশ্য। আর এসব হাটের অধিকাংশ বিক্রেতা নিম্ন আয়ের মানুষ হলেও ক্রেতারা অনেকেই নিম্নমধ্যবিত্ত আয়ের।

বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সারা দিন বিভিন্ন বাসা-বাড়িতে ঘুরে এসব মাংস সংগ্রহ করে খাওয়ার জন্য সামান্য রেখে বাকিটুকু বিক্রি করে দিচ্ছেন। তবে কিছু কিছু বিক্রেতা পেশাদার মাংসের ব্যবসায়ীও আছেন। যারা বিভিন্ন জায়গায় পশু জবাই ও মাংস কেটে যা ভাগে পেয়েছেন তা বিক্রি করে দিচ্ছেন। তবে কোথাও কোথাও মধ্যবিত্ত অনেকেও এসব মাংস কিনতে দেখা গেছে।

বিকালে সিলেট নগরীর আম্বরখানা মোড়ে ১৬০০ টাকার মাংস কিনেছেন এক ক্রেতা৷ নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, 'আমি সৌদিতে থাকি। অন্যান্য বছর নিজেই কুরবানি দিয়েছি। কিন্তু গেলো বছর করোনা শুরুতে দেশে এসে এখন বিপদে। তাই এখান থেকে কিছু মাংস কিনে নিলাম। বাচ্চাগুলোকে খাওয়াই।'

অপরদিকে সরেজমিনে কয়েকটি মোড়ে ঘুরে কয়েকজন বিক্রেতার সাথে কথা বলে জানা গেছে, সারা দিন ঘুরে এসব মাংস সংগ্রহ করে সান্য পরিমাণ খাওয়ার জন্য রেখে বাকিটুকু বিক্রি করা টাকা দিয়েই পরিবারের জন্য অন্যান্য প্রয়োজনীয় সদাই কিনে নিতে চাইছেন।

নয়া শতাব্দী/এসইউ

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এই পাতার আরও খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন
x