ঢাকা | বৃহস্পতিবার ৫ আগস্ট ২০২১, ২১ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৫ জিলহজ ১৪৪২

সিলেটে চামড়া কেনার লাভ নিয়ে ব্যবসায়ীদের অনিশ্চয়তা

সিলেট ব্যুরো

প্রকাশনার সময়: ২২ জুলাই ২০২১, ০১:০৬ |

অবশেষে সিলেটে কুরবানির পশুর চামড়ার ৯০ শতাংশই বিক্রি হলো। চামড়ার নিয়মিত ব্যবসায়ী এবং মৌসুমী ও বাইরে থেকে আসা ব্যবসায়ী মিলে এসব চামড়া কেনেন বলে নয়া শতাব্দীকে জানিয়েছেন শাহজালাল চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি শামিম আহমদ।

তিনি বলেন, সাড়ে চার লক্ষাধিক পশুর মধ্যে প্রায় দুই লক্ষাধিক পশুর চামড়া সরাসরি ব্যবসায়ীরাই কিনেছেন। সেই সাথে মৌসুমি চামড়া ব্যবসায়ী ও বাহির থেকে আসা ব্যবসায়ী মিলে প্রায় ৯০ শতাংশের উপর পশুর চামড়া কেনা হয়েছে। বিক্রেতারা গত বছর বা এর আগের বছরের তুলনায় দামও ভালো পেয়েছেন বলে জানান তিনি।

তবে ঈদের আগে দামের দরপতন, ট্যানারি মালিকদের কাছে বকেয়া, লকডাউনের কারণে পরিবহণ সংকটের সম্ভাবনাসহ নানা কারণে চামড়া সংগ্রহ নিয়ে ব্যবসায়ীদের অনাগ্রহ থাকলেও অবশেষে চামড়ায় আবারও বিনিয়োগ করেন এসব ব্যবসায়ীরা।

তবে সিলেট শহর এবং শহর লাগোয়া উপজেলাগুলো কিংবা জেলা শহর লাগোয়া উপজেলায় দাম তুলনামূলক ভালো থাকলেও প্রত্যন্ত উপজেলায় বিক্রেতারা কিছু কম দাম পেয়েছেন বলে জানান সিলেটের শাহজালাল চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি শামিম আহমদ।

তিনি বলেন, শহরাঞ্চলে গরুর চামড়া আঁকার এবং মানের উপর ভিত্তি করে সর্বনিম্ন দুইশত টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩৫০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে। মাদ্রাসা বা যারা খুচরা চামড়া কিনে বিক্রি করেছেন তারা এ দাম পেয়েছেন, যোগ করেন তিনি।

তবে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা আরও কম টাকায় কিনেছেন। সে ক্ষেত্রে দাম কম হয়েছে গ্রামাঞ্চলে।

শামিম আহমদ আরও বলেন, এসব মৌসুমি বা খুচরা ক্রেতারা চামড়া সংগ্রহ করে লবণ দিয়ে সংরক্ষণ করে পরে আবার আমাদের কাছে বিক্রি করবেন। সে ক্ষেত্রে তারা লাভ করবেন।

তবে চামড়া কিনলেও লাভ নিয়ে এখনো অনিশ্চিত এসব ব্যবসায়ীরা। দরপতন বা সিন্ডিকেট হলে বড় লগ্নীর সম্ভাবনা রয়েছে জানিয়ে শাহজালাল চামড়া ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি শামিম আহমদ বলেন, সরকার থেকে যদি সহযোগিতা না থাকে তবে বিপদ হবে। তাছাড়া বিদেশি কোম্পানিগুলোর চাহিদা কিরকম হচ্ছে এসব কিছুর উপর লাভ-লোকসান নির্ভর করছে।

এদিকে সিলেট বিভাগের চার জেলায় মিলে প্রায় সাড়ে চার লক্ষাধিক পশু কুরবানি হয়েছে বলে সিলেটের প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর থেকে জানা গেছে। এ ক্ষেত্রে এবার চামড়ায় কোন সিন্ডিকেট যাতে না হয় বা ব্যবসায়ীদের লোকসান না হয় সেদিকে কঠোর নজরদারি রয়েছে জানিয়ে সিলেট জেলা প্রাণিসম্পদ (অতিরিক্ত দায়িত্বে সিলেট বিভাগ) কর্মকর্তা রুস্তম আলী বলেন, এবার প্রশাসন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সবার নজরদারি আছে। তাই লোকসানের সম্ভাবনা নেই।

নয়া শতাব্দী/এসইউ

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এই পাতার আরও খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন
x