ঢাকা, বুধবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ৫ মাঘ ১৪২৮, ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে তুলে নিয়ে দুই বন্ধু মিলে ধর্ষণ

প্রকাশনার সময়: ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২১:২৮

কক্সবাজারের সদরের ঝিলংজায় দুই বন্ধু মিলে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্তরা গা-ঢাকা দিয়েছে।

মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) বিকেলে ভিকটিমের মা বাদী হয়ে কক্সবাজার সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। গত ১ ডিসেম্বর ঝিলংজা মহুরিপাড়াস্থ কক্সবাজার পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট সংলগ্ন (উড়নি) এলাকায় ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে।

থানায় অভিযোগ থেকে জানা যায়, গত বুধবার (১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় মহুরিপড়া (উড়নি নামক স্থানে) জনৈক ফরিদের দোকানে নাস্তার জন্য গেলে স্থানীয় সিরাজের ছেলে কেফায়েত উল্লাহ (২০) এবং কোনাপাড়া এলাকার মৃত আবুল হোসনের ছেলে ইমরান (১৯) তাকে জোর করে তুলে নিয়ে যায়। এলাকার নির্জন একটি ভাঙা ঘরে হাত-পা বেঁধে জোরপূর্বক গণধর্ষণ করে। পরে ভিক্টিমের চিৎকারে লোকজন এগিয়ে আসলে ধর্ষকরা পালিয়ে যায়।

মামলার বাদী ও ভিকটিমের মা বলেন, ‘অজ্ঞান অবস্থায় লোকজনের সহযোগিতায় আমার মেয়েকে হাসপাতালে নিয়ে যাই। এ ঘটনায় দুইজনের নাম উল্লেখ করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার স্বামী মানসিক রোগী। আমি ও আমার দুই মেয়ে প্রতিবন্ধী। ভিক্ষা করে কোন রকম সংসার চালিয়ে আসছি। এখন কার কাছে বিচার চাইবো জানি না’

এসময় তিনি আরও জানান, মামলা না করে স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করার জন্য অভিযুক্তরা নানাভাবে চাপ দিচ্ছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গেল ১ ডিসেম্বর ‘কলি’ (ছদ্মনাম) হাসপাতালের ‘ইওসি’ বিভাগের গাইনি ওয়ার্ডে জি-১২ শয্যায় ভর্তি ছিলেন। ২ ডিসেম্বর তাকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। হাসপাতালের ছাড়পত্রে শিশুটি 'সেক্সুয়াল এসল্ট' হওয়ায় সেবা নিয়েছেন বলে উল্লেখ রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে কক্সবাজার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) বিপুল চন্দ্র দে বলেন, ‘ধর্ষণের একটি অভিযোগ পেয়েছি। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। অভিযুক্তদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রেখেছে পুলিশ।’

নয় শতাব্দী/এম

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়