ঢাকা, বুধবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ৫ মাঘ ১৪২৮, ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

স্কুলশিক্ষার্থীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ

প্রকাশনার সময়: ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬:০৯

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলায় পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী (১২) কে দোকানের সামনের রাস্তা থেকে মুখ চেপে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) সকালে নির্যাতিত ছাত্রীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

এর আগে, গতকাল বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) দুপুর ২টায় উপজেলার বীজবাগ ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের বীরনারায়ণপুর গ্রামের জহির উদ্দিনের ডেকোরেটর দোকানে এ ঘটনা ঘটে। একই দিন রাত ১০ টায় ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ২ জনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন, বীজবাগ ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের বীরনারায়ণপুর গ্রামের মজু কারিগর বাড়ির মৃত আব্দুল কাদেরের ছেলে জহির উদ্দিন (৪৫) ও তার সহযোগী একই এলাকার মৃত আলী সারেং এর ছেলে হাবিব উল্যাহ (৪৩)।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, জহির উদ্দিন পেশায় একজন ডেকোরেটর দোকানদার এবং অপর আসামি হাবীব ওই দোকানের মালিক। বিভিন্ন সময় জহির উদ্দিন প্রতিবেশী ওই মাদ্রাসা ছাত্রীকে টাকা-পয়সা দিয়ে লোভ দেখায়। বৃহস্পতিবার দুপুরে ওই ছাত্রী মাদ্রাসা থেকে বাড়ি ফেরার পথে ডেকোরেটর দোকানের সামনে পৌঁছালে জহির উদ্দিন মুখ চেপে ধরে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে দোকানের শাটার বন্ধ করে হাবিব উল্যাহ এর সহায়তায় তাকে ধর্ষণ করে। এ সময় স্থানীয় বাসিন্দারা বিষয়টি টের পেয়ে দোকানে হানা দিলে সে পালিয়ে যায়। পরে ছাত্রীটি তার মা এবং স্থানীয়দের বিষয়টি জানান।

সেনবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাত ১০টায় ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ২ জনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

নয়া শতাব্দী/জেআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়