ঢাকা | বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮

বীর মুক্তিযোদ্ধাকে রক্তাক্ত করল রাজাকার পুত্র!

প্রকাশনার সময়: ২৫ নভেম্বর ২০২১, ০৮:৫৫

কক্সবাজারের মহেশখালী পৌরসভার মেয়র মকছুদ মিয়া ও তার স্বজনদের বিরুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেনকে (৬৫) কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষোভ ও নিন্দার ঝড় উঠে। আহত মুক্তিযোদ্ধা গোরকঘাটা বাজার এলাকার মৃত লাল মিয়ার ছেলে। বর্তমানে তিনি কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) রাত সাড়ে ৮টায় পৌরসভার গোরকঘাটা হিন্দুপাড়া রাস্তার মোড়ে ওই ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, অভিযুক্ত পৌর মেয়র মকছুদ মিয়া মহেশখালী উপজেলার যুদ্ধাপরাধী তালিকার ২২ নম্বর আসামি হাশেম সিকদার ওরফে বড় মোহাম্মদের ছেলে।

এ বিষয়ে আহত মুক্তিযোদ্ধা আমজাদ হোসেন বলেন, রিক্সা নিয়ে গোরকঘাটা বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে হিন্দুপাড়া রাস্তার মোড়ে রিকশার গতিরোধ করে মেয়র মকছুদ মিয়া, তার ছেলে ইয়াবা মামলার আসামি নিশান, ভাগিনা মামুন এবং আত্মীয় মহিউদ্দিন ও শামসুদ্দিনসহ আরও বেশ কয়েকজন। এসময় তারা আমাকে এলোপাতাড়ি মারধর করে এবং কুপিয়ে জখম করে রাস্তায় ফেলে চলে যায়।

মুক্তিযোদ্ধার ছেলে মো. দেলোয়ার বলেন, ‌‌জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে পৌর মেয়র মকছুদ তার দলবল নিয়ে আমার বাবাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়। কিছুদিন আগে আমার বাবা মেয়রের বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন। এরপর থেকে এলাকায় আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছিলাম। এনিয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনও করেছিলাম। এর জেরে আজ আমার বাবারও উপর হামলা চালায়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মেয়র মকছুদ মিয়া বলেন, আমজাদ হোসেনের মানসিক সমস্যা রয়েছে তাই আমার নাম বলেছে। আমি আমজাদের হামলার সাথে জড়িত নই। তার উপর হামলা হয়েছিল কিনা তাও আমি জানি না। আমি বর্তমানে কক্সবাজারে অবস্থান করছি।

তিনি আরও বলেন, ৩১ বছর আগে খাইরুল আমিন হত্যা মামলায় অভিযুক্ত আমজাদ। ওই মামলার শুনানি শুরু হয়েছে। হয়তো বা সেই মামলার কার্যক্রমকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে তিনি এই হামলার নাটকটি সাজিয়েছেন।

মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আবদুল হাই বলেন, মুক্তিযোদ্ধার উপর হামলাকারীদের তিনি চিনতে পেরেছেন বলে জানিয়েছেন। তিনি লিখিত অভিযোগ করলে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

নয়া শতাব্দী/এসএম

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন