ঢাকা | বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ৫ কার্তিক ১৪২৮

বিশেষ বরাদ্দের টাকায় দরপত্র, জানেন না সাংসদ

প্রকাশনার সময়: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৪৮

দেড় কিলোমিটারের একটি পাকা সড়ক নির্মাণের জন্য ময়মনসিংহের গফরগাঁও আসনের সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলের বিশেষ বরাদ্দের প্রায় সোয়া কোটি টাকার দরপত্র আহ্বান করা হলেও খোদ সাংসদ নিজেই বিষয়টি জানেন না।

পরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) প্রধান প্রকৌশলীর হস্তক্ষেপে আহ্বান করা দরপত্র বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

স্থানীয়দের ভাষ্য, গফরগাঁও উপজেলার মশাখালী টানপাড়া বারো মসজিদ রেললাইন পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার সড়ক উন্নয়নের জন্য এক কোটি ২৫ লাখ ৫৪ হাজার ৮৬ টাকার দরপত্র আহ্বান করেন ময়মনসিংহের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী শাহিদুজ্জামান খান। দরপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ নির্ধারণ করা হয় আগামী ৩ অক্টোবর।

এ বিষয়ে গফরগাঁও পৌর আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক সালাউদ্দিন পলাশ জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য ফাহমী গোলন্দাজ বাবেলকে আড়ালে রেখে, আইন অমান্য করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলীসহ কর্মকর্তারা এ টেন্ডার আহ্বান করেছেন। যে এলাকায় সড়ক নির্মাণের জন্য টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে সেটি জনগুরুত্বপূর্ণ নয়। এছাড়া বেশি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক থাকলেও এমপির ডিও লেটার ছাড়াই তার বিশেষ বরাদ্দের টাকা থেকে পরিকল্পিতভাবে এ কাজটি করেছেন কর্মকর্তারা। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে সাংসদ ফাহমী গোলন্দাজ বাবেল বলেন, ‘আমাকে না জানিয়ে এবং আমার ডিও লেটার ছাড়াই সম্পূর্ণ আইন বহির্ভূতভাবে সড়ক নির্মাণের জন্য প্রকল্প প্রস্তুত করে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছিল। বিষয়টি প্রধান প্রকৌশলীকে জানানোর পর দরপত্র বাতিল করার উদ্যোগ নিচ্ছেন প্রকৌশলীরা।’

তিনি আরও বলেন, ‘সড়ক নির্মাণের জন্য প্রকল্প কার্যক্রম প্রস্তুত করতে সরকারের অনেক টাকা ব্যয় হয় এবং এই দরপত্র আহ্বানের জন্য অনেক টাকা দিয়ে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিতে হয়। নির্বাহী প্রকৌশলী ও তার সহকর্মীদের খামখেয়ালীর কারণে সরকারের টাকা এভাবে খরচ হবে এটা মেনে নেওয়া যায় না।’

এদিকে, গফরগাঁও উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) জাকির হোসেন বলেন, ‘বিশেষ বরাদ্দের দরপত্র আহ্বান করেন নির্বাহী প্রকৌশলী। এ ব্যাপারে আমাদের কোনো হাত নেই।’

এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শাহিদুজ্জামান খান বলেন, ‘বিশেষ একটি তদবির থাকায় এমপি মহোদয়ের বরাদ্দ থেকে এ প্রকল্পটি গফরগাঁও উপজেলা প্রকৌশল অফিস থেকে প্রস্তাবনা আকারে পাঠানো হয়। প্রস্তাবনা পেয়ে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। তবে ভুল বোঝাবুঝির কারণে প্রকল্পটি বাতিল করার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

নয়া শতাব্দী/এসডি/জেআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন