ঢাকা | রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮

কনের বয়স ৫৬, বরের ৩০! 

ময়মনসিংহ ব্যুরো

প্রকাশনার সময়

০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:০৯

একসময় একটা প্রবাদ খুবই প্রচলিত ছিল কুড়িতেই বুড়ি। বয়স কুড়ি পেরোলেই ভ্রু কুঁচকে তাকাত সমাজ। রাতের ঘুম হারাম হয়ে যেতো মেয়ের মা-বাবার। কালের স্রোতে এই প্রবাদ অর্থ হারাতে বসেছে। নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হয়েছে ব্যাপক। এখন ৮০ বছরের নারীর সাথে ১০০ বছরের অধিক বয়সের পুরুষের বিয়ের নজীর আছে অহরহ।

এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে। ৩০ বছরের এক যুবকের সঙ্গে ৫৬ বছর বয়সী এক নারীর বিয়ে হয়েছে।

এ বিয়ের ঘটনাটি ঘটে উপজেলার বড়হিত ইউনিয়নে। তবে বর নববধূর নাতি হয় বলে জানা গেছে। তাদের দুজনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল। শেষমেষ অসম প্রেমটি বিয়ের মাধ্যমে সমাপ্ত হয়।

প্রেম ও বিয়ের সত্যতা নিশ্চিত করেছে বড়হিত ইউনিয়ন পরিষদের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য খায়রুল ইসলাম।

তিনি জানান, সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাতে ৫৬ বছরের নারীর সাথে ওই যুবকের বিয়ে হয়। বিয়েতে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

তবে স্থানীয় কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, গত বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) রাতে ওই নারীর ঘরে এ যুববকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করেন ওই নারীর ছেলে। এরপর এলাকার লোকজনকে ডেকে বিষয়টি অবগত করান।

পরদিন শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা সালিশে বসেন। সেখানে ওই যুবকের সঙ্গে দাদির বিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তবে বিয়ের সিদ্ধান্ত হওয়ার পরেই যুবক পালিয়ে যান। পরে সোমবার (৬ সেপ্টেম্বর) ওই যুবক বাড়ি ফিরে আসলে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়।

তবে ওই যুবকের বাবা অভিযোগ করে বলেন, ঘটনার একধিক সালিশ হয়েছে। সালিশে মাতব্বরদের পা ধরেছি। তারপরেও আমার অবিবাহিত ছেলেকে ৫৬ বছর বয়সী ওই নারীর সঙ্গে পাঁচ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে দিয়েছে।

ওই যুবকের মা বলেন, সালিশে আমি সকলের কাছে ছেলের কৃতকর্মের জন্য মাফ চেয়েছি। কিন্তু কেউ আমার কথা শোনেননি। ওই নারীও আমার ছেলেকে বিয়ে করতে রাজি ছিল না, তারপরেও জোর করে বিয়ে দিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে মঙ্গলবার দুপুরে ইউপি সদস্য খাইরুল ইসলামের মোবাইলে একাধিকবার ফোন করলেও তা রিসিভ না করায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।

বড়হিত ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শাহ জালাল বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। বিয়ে হয়েছে কি-না তাও বলতে পারব না। আমি বেশ কয়েকদিন ধরে অসুস্থ।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল কাদির মিয়া বলেন, এমন ঘটনার বিষয়ে আমি অবগত নই। তাছাড়া থানায় কেউ এই বিষয়টি অবগত করেনি।

নয়া শতাব্দী/এম

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন
x