ঢাকা | রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮

টাঙ্গাইলে পানি কমলেও কমেনি দুর্ভোগ

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

প্রকাশনার সময়

০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪:৫৮

টাঙ্গাইল যমুনা, ধলেশ্বরী এবং ঝিনাই নদীর পানি কমলেও বেড়েছে বংশাই নদীর পানি। তবে এখনো ৪ নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বর্তমানে কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দী রয়েছে। সেই সঙ্গে পানি কমলেও কমেনি বানবাসী মানুষের দুর্ভোগ। পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা নদীর পানি ২৪ সেন্টিমিটার কমে বিপদসীমার ৩৩ সেন্টিমিটার, ঝিনাই নদীর পানি ১১ সেন্টিমিটার কমে বিপদসীমার ৭৬ সেন্টিমিটার এবং ধলেশ্বরী নদীর পানি ৭ সেন্টিমিটার কমে বিপদসীমার ৭২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এ ছাড়া বংশাই নদীর পানি ৪ সে.মি. বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ২১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এদিকে পানি কমতে থাকায় বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে ভাঙন। ভাঙনের ফলে নদী তীরবর্তী এলাকায় ইতিমধ্যে তিন শতাধিক বসতভিটা, রাস্তাসহ নানা স্থাপনা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এ ছাড়া কাঁচা-পাকা রাস্তা ভেঙে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে রয়েছে।

অপরদিকে মাঠ ঘাট তলিয়ে থাকায় বন্যা কবলিত এলাকায় দেখা দিয়েছে গো খাদ্যোর সংকট। ৯৮০ হেক্টর রোপা আমন বন্যার পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে। আগামী ১৫ সেপ্টম্বর এর মধ্যে পানি নেমে গেলে নিমজ্জিত ৫০ ভাগ রোপা আমনের ক্ষতি ঠেকানো সম্ভব হবে বলে কৃষি বিভাগ জানায়।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘নদী তীরবর্তী এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। পানি কমতে থাকলে নদী ভাঙন আরো তীব্র হবে।’

এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইল জেলা ত্রাণ ও পূনর্বাসন কর্মকর্তা দিলীপ কুমার সাহা বলেন, ‘ইতিমধ্যে নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত ২১২টি পরিবারকে ৫ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে। বন্যা দুর্গতদের জন্য ৪০ মে.টন জির চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। প্রর্যাক্রমে তালিকা অনুযায়ী ভানবাসী সবাইকে সহযোগিতা করা হবে।

নয়া শতাব্দী/জেআই

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন
x