ঢাকা | সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৫ আশ্বিন ১৪২৮

প্রধানমন্ত্রীকে এসএমএস পাঠিয়ে ঘর পেলেন বাবু মিয়া

মাগুরা প্রতিনিধি

প্রকাশনার সময়

০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:২৩

সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকে নিজের দুর অবস্থার কথা জানিয়ে মোবাইল ফোনে এসএমএস (খুদে বার্তা) পাঠিয়ে জমিসহ পাকা ঘর পেল মাগুরা সদর উপজেলার রামনগরের প্রতিবন্ধী কলেজ ছাত্র বাবু মিয়া।

মাগুরা জেলা প্রশাসক ড.আশরাফুল আলম শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মাগুরা হাজরাপুর ইউনিয়ন পরিষদ এলাকায় উপস্থিত থেকে বাবু মিয়ার কাছে বাড়ি ও জমির দলিল বুঝে দেন।

হাজরাপুর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে দুইশত সরকারি খাস জমিতে সেমি পাকা দুই কক্ষের টিন সেটের ঘর নির্মিত হয়েছে।

বাবু মিয়া বলেন, বাবা মারা যাওয়ার পর মাকে নিয়ে নানা বাড়িতে থেকেছি। আমার কোন জায়গা জমি ছিল না। মাকে নিয়ে কোথায় যাব কোথায় থাকবো। এই চিন্তা থেকেই অনেক কষ্ট করে প্রধানমন্ত্রীর মোবাইল নম্বার জোগাড় করে মোবাইলে বাড়ি চেয়ে এসএসএস পাঠাই। প্রধানমন্ত্রী আমার এসএসএসটি পড়ে মাগুরা জেলা প্রশাসকের নির্দেশ দেন বাড়ি করে দেয়ার। তখন হাজরাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের সহযোগীতায় হাজরাপুর পুরাতন বাজার হাই রোডের পাশে দুইশত জমিতে আমাদের জন্য পাকা ঘর করে দিয়েছেন। আল্লাহ কাছে দুই তুলে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। আল্লাহ যেন তাঁকে সুস্থ রাখে। আমার মতো অসহায় ভূমিহীন প্রতিবন্ধী মানুষের পাশে তিনি সব সময় থাকবেন। প্রধানমন্ত্রীর জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া রইল।

মা হাসনাহেনা বেগম বলেন, চার সন্তানের মধ্যে বাবু সবার ছোট। ছোট বেলা থেকে বাবু প্রতিবন্ধী ঠিক মত কথা বলতে পারে না। স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে চার সন্তান নিয়ে আমি অনেক কষ্ট করেছি। আমার বাবার বাড়িতে ছোট একটি ঘর সেখানে সবাইকে নিয়ে বাস করা যায় না। অনেক কষ্ট করে খেয়ে না খেয়ে আমি সন্তানদের মানুষ করেছি। কিন্তু তাদের কোন জায়গা জমি নেই। প্রধানমন্ত্রী আমার বাবুর পাঠানো এসএমএস শত ব্যস্ততার মাঝে পড়ে আমাদের জন্যে ঘর তৈরি করে দিয়েছে। আমি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাই। আল্লাহ যেন তাঁকে দীর্ঘজীবী করে।

জেলা প্রশাসক ড. আশরাফুল আলম বলেন, প্রতিবন্ধী বাবু মিয়া তার নিজের অসহায়ত্বের কথা প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের কাছে এসএমএস করেন। তিনি এসএমএস করে লেখেন আমি প্রতিবন্ধী বাবু মিয়া, আমি মাকে নিয়ে ছোট বেলা থেকে নানা বাড়িতে জীবনযাপন করছি। আমাদের কোন জমিজায়গা নেই। আমার মাসহ মোট পাঁচনের বাস। একটি মাত্র ঘর। আমার একটি ঘর অতি দরকার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার একটি ঘর করে দিলে চির কৃতজ্ঞ হব।

জানালে প্রধানমন্ত্রী নিজের দাপ্তরিক কাজ শেষ করে এসএমএসটি দেখেন। পরবর্তীতে বাবু মিয়ার খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারি ছোট বেলায় তার বাবা মারা যান। মাকে নিয়ে রামনগর নানা বাড়িতে থাকতেন। বাবু মিয়ার একজন ভূমিহীন প্রতিবন্ধী কলেজ ছাত্র। সে বর্তমানে মাগুরা আদর্শ কলেজের ডিগ্রী দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাবু মিয়াকে ঘর ও জমির দলিল বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ঘর প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, জেলা প্রশাসক ড. আশরাফুল আলম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইয়াসিন কবির, হাজরাপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কবির হোসেনসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিগর্ব উপস্থিত ছিলেন।

নয়া শতাব্দী/এসএম

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন
x