ঢাকা | সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮

ভোট কিনছেন জাপার আতিক, অভিযোগ আ.লীগের

সিলেট ব্যুরো

প্রকাশনার সময়

০৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৫৪

রাত পোহালেই সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণ। আর এর আগের দিন পাওয়া গেলো জাতীয় পার্টির প্রার্থী আতিকুর রহমান আতিকের বিরুদ্ধে টাকা বিতরণের অভিযোগ। এ অভিযোগে বলা হয়েছে, 'জাপার প্রার্থী টাকা দিয়ে ভোট কেনার চেষ্টা করছেন।'

শুক্রবার (৩ সেপ্টেম্বর) সিলেট-৩ আসনের উপ নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা ও সিলেটের জেলা প্রশাসক এম. কাজী এমদাদুল ইসলামের বরাবরে এসব অভিযোগ করেন নৌকার প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিরের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট ফারুক আহমদ। লিখিত অভিযোগে তিনি আতিকের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ারও অনুরোধ করেন।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, নৌকার সমর্থক ও সাধারণ জনগণের মাধ্যমে তিনি জানতে পারেন লাঙ্গলের প্রার্থী আতিকুর রহমান স্বয়ং ও তার সমর্থিক কর্মীরা ভোটারদের মাঝে টাকা বিতরণ করে ভোট কেনার চেষ্টা করছেন। দক্ষিণ সুরমার বিভিন্ন পাড়া মহল্লা ভোটারদের মাঝে টাকা বিলিয়ে দিচ্ছেন তারা। যা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন।

তবে এসব অভিযোগের ব্যাপারে জানতে জাতীয় পার্টির প্রার্থী আতিকুর রহমান আতিকের ব্যবহৃত মুঠোফোন নম্বরে নয়া শতাব্দী থেকে যোগাযোগ করা হলে 'পরে কথা বলব' বলে ফোন রেখে দেন।

তবে প্রার্থীদের একে অপরের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ নতুন নয়। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা শুরু থেকেই অভিযোগ দেওয়ায় এগিয়ে ছিলেন জাপার প্রার্থী আতিক। রিটার্নিং কর্মকর্তা ও প্রধান নির্বাচন কমিশনার উভয় জায়গায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিবের বিরুদ্ধে ছুটেছেন অভিযোগ নিয়ে।

এদিকে আওয়ামী লীগের হাবিব ও জাতীয় পার্টির আতিক ছাড়াও এ আসনে স্বতন্ত্র থেকে মোটরকার প্রতীকে নির্বাচন করছেন দীর্ঘদিনের বিএনপির রাজনীতির সাথে যুক্ত থাকা শফি আহমদ চৌধুরী। আর বাংলাদেশ কংগ্রেসের হয়ে ডাব প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন জুনায়েদ মোহাম্মদ মিয়া।

দক্ষিণ সুরমা-ফেঞ্চুগঞ্জ-বালাগঞ্জ নিয়ে গঠিত প্রায় ৩ লাখ ৫০ হাজার ভোটারের এ আসনে ইতোমধ্যে ভোটের জন্য সকল সরঞ্জাম পৌঁছেছে।

শুক্রবার (৩ সেপ্টম্বর) দুপুর থেকে সংশ্লিষ্ট ৩ উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে এসব নির্বাচনী সরঞ্জাম নির্ধারিত ১৪৯ ভোটকেন্দ্রে পাঠানো শুরু হয়। একইসাথে নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট সবাইকে স্ব স্ব কেন্দ্রে পাঠানো হয়।

রিটানিং কর্মকর্তা ও সিলেটের জেলা প্রশাসক এম. কাজী এমদাদুল ইসলাম জানান- উপ-নির্বাচনে ভোটগ্রহণের দিন কড়া নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা থাকবে দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ উপজেলা। ভোটকেন্দ্রে থাকবে পুলিশ, আনসার ও গ্রাম পুলিশের ১৭ থেকে ১৮ জন সদস্য। আর গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে নিয়োজিত থাকবে ১৮ থেকে ১৯ জন সদস্য।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ, এপিবিএন ও ব্যাটালিয়ন আনসারের সমন্বয়ে গঠিত ২১টি মোবাইল ফোর্স, ১২টি স্ট্রাইকিং ফোর্স, র‌্যাবের ১২টি টহল টিম ও ১২ প্লাটুন বিজিবি নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবে। যেকোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা মোকাবিলায় বিজিবির সঙ্গে ২১ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। তাদেরকে মনিটরিং করবেন ৩ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক।

নয়া শতাব্দী/এম

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন
x