ঢাকা, শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

ব্যয় সংকোচনের পথে হাঁটছে সরকার

প্রকাশনার সময়: ১২ মে ২০২২, ১৫:৪২

আমদানি ব্যয় অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় চাপের মুখে পড়েছে দেশের অর্থনীতি। রিজার্ভ ৪২ বিলিয়ন ডলারের নিচে নেমে এসেছে। বাণিজ্য ঘাটতি ২৫ বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছে। বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যের (ব্যালান্স অব পেমেন্ট) ঘাটতি ১৪ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। ফলে ডলারের দাম বেড়েই চলেছে। গত মঙ্গলবারও যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের বিপরীতে টাকার মান ২৫ পয়সা কমিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আন্তঃব্যাংক মুদ্রাবাজারেই এখন এক ডলারের জন্য ৮৬ টাকা ৭০ পয়সা খরচ করতে হচ্ছে।

ব্যাংকগুলো ডলার বিক্রি করছে এর চেয়ে সাড়ে পাঁচ-ছয় টাকা বেশি দরে; ৯২ টাকা থেকে সাড়ে ৯২ টাকায়। খোলা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৯৩ টাকায়। মহামারি করোনার প্রভাব আপাতত নেই। কিন্তু রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিতে চাপ সৃষ্টি হয়েছে। এ চাপ সামলাতে নানামুখী পদক্ষেপের মাধ্যমে ব্যয় সংকোচনের পথে হাঁটছে সরকার।

এসব পদক্ষেপের অংশ হিসেবেই সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ সফর বন্ধ ও কম গুরুত্বপূর্ণ আমদানিনির্ভর প্রকল্পের বাস্তবায়ন পিছিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল।

সরকারি ব্যয়ের লাগাম টেনে ধরতে এই দুটি বিষয়ে শিগগিরই প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এরইমধ্যে আমদানি ব্যয় কমাতে বিলাস পণ্য আমদানিতে কড়াকড়ি আরোপ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

গত ১১ এপ্রিল জরুরি পণ্য ছাড়া অন্য সব পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে কমপক্ষে ২৫ শতাংশ এলসি মার্জিন রাখার নির্দেশ দিয়েছিল বাংলাদেশ ব্যাংক। গত মঙ্গলবার সে নির্দেশনায় পরিবর্তন এনে সব ধরনের গাড়ি, ইলেকট্রিক্যাল এবং ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী আমদানির এলসি খুলতে ন্যূনতম ৭৫ শতাংশ নগদ মার্জিন রাখার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। জরুরি পণ্য ছাড়া অন্য সব পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে কমপক্ষে ৫০ শতাংশ মার্জিন রাখতে বলা হয়েছে। অর্থাৎ কোনো ব্যবসায়ী বা ব্যক্তি ১ কোটি টাকার একটি গাড়ি আমদানি করতে চাইলে তাকে ৭৫ লাখ টাকা নগদ দিতে হবে। বাকি ২৫ লাখ টাকা ব্যাংক ঋণ দিয়ে এলসি খুলবে।

সারাবিশ্বে করোনা পরিস্থিতির উন্নতিতে অর্থনীতির চাকা সচল হওয়ার পর বাংলাদেশের রফতানি যেমন বেড়েছে, তেমনি বেড়েছে কাঁচামাল ও মূলধনি যন্ত্রপাতিসহ বিলাস পণ্যের আমদানি।

রফতানির চেয়ে আমদানি ব্যয় অনেক বেড়ে যাওয়ায় বাড়ছে বাণিজ্য ঘাটতি। এতে চাপ পড়ছে রিজার্ভে। আর ডলার সংকটে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে সবচেয়ে বেশি ব্যবহূত এই মুদ্রার দাম যাচ্ছে বেড়ে। এতে আবার খাদ্যপণ্যসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় উপকরণ দেশে আনার ক্ষেত্রে খরচ বাড়ছে। এটিও পণ্যমূল্য বৃদ্ধির একটি কারণ।

বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেল, খাদ্যপণ্যসহ সব ধরনের পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়া আমদানি ব্যয় বৃদ্ধির একটি কারণ বলে জানিয়েছেন অর্থনীতিবিদ ও ব্যাংকাররা।

চলতি অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে (জুলাই-মার্চ) ৬ হাজার ১৫২ কোটি ৪০ লাখ (৬১.৫২ বিলিয়ন) ডলারের পণ্য আমদানি করেছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তারা। এই অঙ্ক গত অর্থবছরের একই সময়ের চেয়ে ৪৩ দশমিক ৮৬ শতাংশ বেশি।

তবে রফতানি বাণিজ্যে বেশ উল্লম্ফন ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। রফতানি আয়ের দশ মাসের তথ্য প্রকাশ করেছে রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো (ইপিবি)। এই দশ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) বিভিন্ন পণ্য রফতানি করে ৪৩ দশমিক ৩৪ বিলিয়ন ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ, যা গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ৩৫ দশমিক ১৪ শতাংশ বেশি। এই পরিস্থিতিতে অর্থনীতিবিদরা আমদানিতে লাগামের পরামর্শ দিয়ে আসছিলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এই মুহূর্তে কোভিড পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে। তবে ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের প্রভাব সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। বাংলাদেশেও এর প্রভাব পড়েছে। এই যুদ্ধ কবে থামবে আমরা কেউ জানি না। সেজন্য খরচের লাগাম টেনে ধরতে আগাম সতর্কতামূলক পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

‘বিলাস পণ্য আমদানি উৎসাহিত করা হয়েছে। অবশ্য এটা কিছু সময়ের জন্য। এছাড়া যেসব প্রকল্পে এখন অর্থায়ন না করে ৬ মাস পর করলে চলবে— এমন প্রকল্পগুলোতে অর্থায়ন পিছিয়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।’ তবে এসব প্রকল্পে অর্থায়নের সময় পিছিয়ে দেয়ার কারণে অর্থনীতিতে কোনো ক্ষতি হবে না বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মুস্তফা কামাল বলেন, ‘করোনার কারণে অনেক কর্মকর্তা বিদেশ যেতে পারেননি। তাদের অনুমতি দেয়া হয়েছিল। এজন্য এ খাতে কিছুটা ব্যয় বেড়েছে। কিন্তু বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া নতুন করে আর অনুমতি দেয়া হবে না।’ তিনি বলেন, ‘এসব পদক্ষেপের মাধ্যমে অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা পুনর্গঠন করে সরকারি খরচের লাগাম টেনে ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে।’ আমদানি ব্যয় বাড়ায় বাংলাদেশের বিদেশি মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভ ৪২ বিলিয়ন (৪ হাজার ২০০ কোটি) ডলারের নিচে নেমে এসেছে। আকুর (এশিয়ান ক্লিয়ারিং ইউনিয়ন) রেকর্ড ২২৪ কোটি (২.২৪ বিলিয়ন) ডলার আমদানি বিল পরিশোধের পর মঙ্গলবার দিন শেষে রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ৪১ দশমিক ৯৫ বিলিয়ন ডলার। গত বছরের ২৪ আগস্ট এই রিজার্ভ অতীতের সব রেকর্ড ছাপিয়ে ৪৮ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অতিক্রম করেছিল।

নয়া শতাব্দী/এস

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ