ঢাকা | রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮

গণটিকা কর্মসূচির বিষয়ে কী ভাবছে সরকার?

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশনার সময়

০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৫০

আপডেট

০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:০৫

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার গত মাসের ১৪ আগস্ট থেকে এক সপ্তাহ গণটিকা কার্যক্রম চালু করে। এরপর তা বন্ধ করে দেয়। যার ফলে টিকা কাঙ্ক্ষিত মানুষের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করে।

গণটিকা কার্যক্রম চালু হওয়ার পর গ্রামের মানুষের মাঝেও টিকা নেওয়ার আগ্রহ বেড়ে যায়। অনেকে টিকা কেন্দ্রে গিয়ে লাইনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থেকেও টিকা না পেয়ে হতাশা প্রকাশ করেন।

এ অবস্থায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, সবশেষ সাড়ে ১৬ কোটি করোনা প্রতিরোধী টিকা কেনার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই টিকা হাতে পাওয়ার পর দেশে পুনরায় গণটিকাদান কর্মসূচির বিষয়ে ভাবা হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যে ৮০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেওয়া সম্ভব হবে। আজ শনিবার সকালে রাজধানীর ফার্মগেটে তেজগাঁও সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নার্সি ও মিডওয়াইফারি কোর্সে কম্প্রিহেন্সিভ (লাইসেন্সিং/প্রি-রেজিস্ট্রেশন) পরীক্ষা কেন্দ্র পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

দেশে প্রথম দফায় ‘গণটিকা কর্মসূচি’-তে যারা প্রথম ডোজ পেয়েছেন তাদের দ্বিতীয় ডোজ সংরক্ষিত রয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, টিকাকেন্দ্র থেকে এসএমএস পাওয়া মাত্রই তারা দ্বিতীয় ডোজ পেয়ে যাবেন।

সাড়ে ১৬ কোটি টিকা কেনার নীতিগত সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এরমধ্যে চীন থেকে নতুন করে ৬ কোটি ডোজ টিকার মধ্যে থেকে প্রতিমাসে ২ কোটি ডোজ করে আগামী তিনমাসে এই টিকা দেশে পৌঁছাবে। আর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে আরও ১০ কোটি ৫০ লাখ ডোজ টিকা কেনা হবে। সেইসাথে ভ্যাকসিন অ্যালায়েন্স কোভ্যাক্স সুবিধার আওতায় টিকাও আসবে।

করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ থাকা স্কুল-কলেজের শ্রেণিকক্ষে পাঠদান আগামী ১২ সেপ্টেম্বর থেকে চালু করার প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার। এ সময় শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের কীভাবে সুরক্ষা দেওয়া হবে- আগামীকাল রবিবার (৫ সেপ্টেম্বর) আন্তঃমন্ত্রণালয়ের বৈঠকে সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

তিনি বলেন, ‘স্কুল-কলেজ খোলার পর কীভাবে নিরাপদে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে নেওয়া হবে- এই বিষয়েও আগামীকাল আন্তঃমন্ত্রণালের বৈঠক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। আর শিক্ষার্থীদের টিকার বিষয়েও বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

শিক্ষার্থীদের কোন টিকার দেওয়া হবে- এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে যাদের বয়স তাদের যে কোনও টিকা দেওয়া যাবে। তবে এর নিচে যাদের বয়স তাদের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ অনুযায়ী ফাইজার বা মর্ডানার টিকা দেওয়া হবে।

নয়া শতাব্দী/এম

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়
বেটা ভার্সন
x